Monday
12.18.2017
6:17 AM
Welcome Guest
RSS
 
My site
Main Sign Up Login
বই »
Site menu

Statistics

Total online: 1
Guests: 1
Users: 0

Main » 2014 » July » 6 » কিছু প্রশ্ন
2:25 PM
কিছু প্রশ্ন

 

কিছু প্রশ্ন

 

(১) বাংলাদেশে মধ্যপ্রাচ্যের দেশ সমূহের ( যেমন সৌদি আরব, ইয়েমেন, ওমান, ইরাক, কুয়েত, জর্দান ইত্যাদি দেশের ) একদিন পরে সিয়াম / রোজা শুরু করলে, বা বাংলাদেশে মধ্যপ্রাচ্যের একদিন পরে ঈদ করলে এই অবস্হা হয়: বাংলাদেশ থেকে কেউ রোযা শুরু করে রমযান মাসের যে কোন দিন মধ্যপ্রাচ্যে গিয়ে সেখানে ঈদ করলে তার রোযা ২৮ বা ২৯ টি হয় অর্থাৎ অন্যদের চেয়ে একটি কম হয়, আবার মধ্যপ্রাচ্য থেকে কেউ রোযা শুরু করে রমযান মাসের যে কোন দিন বাংলাদেশে এসে ঈদ করলে তার রোযা ৩০ বা ৩১ টি হয় অর্থাৎ অন্যদের চেয়ে একটি বেশি হয়। অথচ ২৮ বা ৩১ রোজার বিধান ইসলামে নাই। হাদীস শরীফে বলা হয়েছে আরবী মাস ২৯-এর কম হবেনা এবং ৩০-এর বেশী হবেনা। প্রসঙ্গত উল্লেখযোগ্য ঈদের দিন রোযা রাখা হারামএক্ষেত্রে সমাধান কি??? দলিল সহ জানতে চাই।

 

(২) মধ্যপ্রাচ্যে কেউ ঈদুল ফিতরের দিন ঈদের নামাজ আদায় করে ঐদিন বাংলাদেশে এসে দেখল (স্হানীয়ভাবে আলাদা চাঁদ দেখে আমলের কারনে) বাংলাদেশের মানুষ রোজা করছে। তাহলে সে দিনের বাকী সময় পানাহার করতে পারবে কিনা? একইভাবে, আফগানিস্তানে কেউ ঈদুল ফিতরের দিন ঈদের নামাজ আদায় করে ঐদিন (মানুষের তৈরী হারাম জাতীয়তাবাদী সীমান্ত পার হয়ে) একেবারে পাশের দেশ পাকিস্তানে এসে দেখল (স্হানীয়ভাবে আলাদা চাঁদ দেখে আমলের কারনে) মানুষ রোজা করছে। তাহলে সে দিনের বাকী সময় পানাহার করতে পারবে কিনা?

আবার বাংলাদেশে কেউ স্হানীয়ভাবে আলাদা চাঁদ দেখে শাবানের হিসাব করে শাবানের শেষ দিন দিনের বেলা খাওয়া-দাওয়া করে ঐদিন মধ্যপ্রাচ্যে যেয়ে দেখল মধ্যপ্রাচ্যের মানুষ রমজানের রোজা করছে। তাহলে সে দিনের বাকী সময় পানাহার করতে পারবে কিনা? একইভাবে, পাকিস্তানে কেউ স্হানীয়ভাবে আলাদা চাঁদ দেখে শাবানের হিসাব করে শাবানের শেষ দিন দিনের বেলা খাওয়া-দাওয়া করে ঐদিন (মানুষের তৈরী হারাম জাতীয়তাবাদী সীমান্ত পার হয়ে) একেবারে পাশের দেশ আফগানিস্তানে যেয়ে দেখল আফগানিস্তানের মানুষ রমজানের রোজা করছে। তাহলে সে দিনের বাকী সময় পানাহার করতে পারবে কিনা?

ধরুন আফগানিস্তানের ও পাকিস্তানের সীমান্তের মাঝামাঝি কিছু মুসলমান অবস্হান করছে যারা আফগানিস্তানের বা পাকিস্তানের নাগরিক নয়। তাহলে তারা কি রোজা করবে নাকি ঈদ করবে? দলিল সহ জানতে চাই। প্রসঙ্গত উল্লেখযোগ্য ঈদের দিন রোযা রাখা হারাম। সীমান্ত গুঁড়িয়ে দিয়ে একদেশ বানিয়ে দিলে কি রোজা করতে হবে নাকি ঈদ করতে হবে? দলিল সহ জানতে চাই।

 

(৩) লাইলাতুল কদর রমজানের শেষ দশদিনের বিজোড় রাত্রে যেমন ২১, ২৩, ২৫, ২৭, ২৯ এমন বিজোড় রাত্রে খোঁজ করতে বলা হয়েছে। বাংলাদেশে মধ্যপ্রাচ্যের একদিন পরে রোজা শুরু করলে, মধ্যপ্রাচ্যে যেদিন বিজোড় রাত হয় বাংলাদেশে সেদিন জোড় রাত হয়, আবার বাংলাদেশে যেদিন বিজোড় রাত হয় মধ্যপ্রাচ্যে সেদিন জোড় রাত হয়। তাহলে শবে কদর কি মধ্যপ্রাচ্যের বিজোড় রাত অনুযায়ী হবে নাকি বাংলাদেশের বিজোড় রাত অনুযায়ী হবে নাকি দুই রাত্রেই হবে? যেমন উদাহরন স্বরূপ মধ্যপ্রাচ্যে যদি বৃহস্পতিবার দিনগত শুক্রবার রাত বা জুম্মার রাতটি রমজানের শেষ দশদিনের একটি বিজোড় রাত ও কদরের রাত হয় তাহলে বাংলাদেশে (মধ্যপ্রাচ্যের একদিন পরে রোজা শুরু করার কারনে এলাকা ভিত্তিক হিসেবে) শুক্রবার দিনগত শনিবার রাতটি বিজোড় রাত ও কদরের রাত হবে। তাহলে উপরোক্ত উদাহরনে আসল কদরের রাত কি শুক্রবার রাত নাকি শনিবার রাত নাকি শুক্র ও শনি দুই রাতই?  সূরা কদর অনুযায়ী কুরআন যে রাতে নাযিল হয়েছিল সেটাই কদরের রাত। কদরের রাতে সমগ্র কুরআন একত্রে লওহে মাহফুজ থেকে বায়তুল ইজ্জাহ বা প্রথম আসমানে নাযিল করা হয়েছে। উপরোল্লিখিত উদাহরন স্বরূপ যদি ধরে নেই, মধ্যপ্রাচ্যের জন্য শুক্রবার রাত্রে ৩০ পারা কুরআন একত্রে নাযিল হয়েছে, তাহলে বাংলাদেশের জন্য ৩০ পারা কুরআন একত্রে কি শনিবার রাত্রে আরেকবার নাযিল হয়েছে??? শুক্রবার জুম্মার রাত আর শনিবার রাত কি কখনো একই রাত হতে পারে??? ৩০ পারা কুরআন একত্রে কয় রাতে নাযিল হয়েছে?  কদরের রাত কি একটা নাকি দুইটা? একই বছর একই মাসে পৃথিবীর বিভিন্ন জায়গায় লাইলাতুল কদর কেন ভিন্ন ভিন্ন বারে (যেমন শুক্র, শনি, ইত্যাদি) হবে? ৩০ পারা কুরআন কি মধ্যপ্রাচ্যের জন্য এক রাতে আর বাংলাদেশের জন্য তার পরের রাতে অর্থাৎ দুই রাতে নাযিল হয়েছে? দলিল সহ জানতে চাই। 

 

(৪) হযরত আবু হুরাইয়রা রদিআল্লাহু তায়ালা আনহু থেকে বর্ণিত, রসূলুল্লাহ সল্লাল্লাহু আলাইহি অসাল্লাম এরশাদ করেছেন, “যখন পবিত্র রমযান মাস এসে যায় তখন জান্নাতের দরজা সমূহ খুলে দেয়া হয়” [(সহীহ বুখারী, ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ, খন্ড ৩, পৃষ্ঠা ২৪০-২৪১, হাদীস নং ১৭৭৭) অথবা (সহীহ বুখারী, ইংরেজী অনুবাদ - ড. মুহসীন খান, সৌদি আরব, খন্ড ৩, অধ্যায় ৩০, পৃষ্ঠা ৮২, হাদীস নং ১৮৯৮)]

 

হযরত আবু হুরাইয়রা রদিআল্লাহু তায়ালা আনহু থেকে বর্ণিত, রসূলুল্লাহ সল্লাল্লাহু আলাইহি অসাল্লাম এরশাদ করেছেন, “যখন পবিত্র রমযান মাস এসে যায় তখন আসমানের দরজা সমূহ খুলে দেয়া হয়, জাহান্নামের দরজা সমূহ বন্ধ করে দেয়া হয় এবং শয়তানকে শৃংখলাবদ্ধ করা হয়।[(সহীহ বুখারী, খন্ড ৩, হাদীস নং ১২৩ অথবা খন্ড ৩, অধ্যায় - সাওম, হাদীস নং ৯, অথবা খন্ড ৩, অধ্যায় ৩১, হাদীস নং ১২৩) অথবা (সহীহ বুখারী, ইংরেজী অনুবাদ - ড. মুহসীন খান, সৌদি আরব, খন্ড ৩, অধ্যায় ৩০, পৃষ্ঠা ৮২, হাদীস নং ১৮৯৯) অথবা (সহীহ বুখারী, ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ, খন্ড ৩, পৃষ্ঠা ২৪১, হাদীস নং ১৭৭৮,)]

 

উদাহরন স্বরূপ ধরে নেই মধ্যপ্রাচ্যে যদি বৃহস্পতিবার দিনগত জুম্মার রাত্রে রমযান মাস শুরু হয় তাহলে বাংলাদেশে এলাকা ভিত্তিক চাঁদের হিসেব করলে মধ্যপ্রাচ্যের একদিন পরে রোজা শুরু করার কারনে শুক্রবার দিনগত শনিবার রাত্রে রমযান মাস শুরু হবে। জান্নাতের দরজা খুলে দেয়া, জাহান্নামের দরজা বন্ধ করা, মূল শয়তানকে বন্দি করা এগুলি কি মধ্যপ্রাচ্যের রমজান শুরুর রাত্রে অর্থাৎ উপরোল্লিখিত উদাহরন অনুযায়ী জুম্মার রাত্রে নাকি পরদিন বাংলাদেশের রমজান শুরুর রাত্রে অর্থাৎ শনিবার রাত্রে হবে নাকি দুই রাত্রে দুই বার হবে? দলিল সহ জানতে চাই।

 

(৫) রসূলুল্লাহ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন যে, “আরাফার দিনে রোযার ব্যাপারে আমি আল্লাহর নিকট আশা রাখি, তা পূর্ববর্তী বছর এবং পরবর্তী বছরের গুনাহ্‌ মুছে দিবে (বা ঐ দিনের রোযার বিনিময়ে আল্লাহ পাক রোযাদারের পূর্ববর্তী এক বছর এবং পরবর্তী এক বছরের গুনাহ্‌ ক্ষমা করে দেন)”। [(মুসলিম শরীফ, অধ্যায় সাওম, হাদীস নং ২৬০২ ও ২৬০৩, অথবা অধ্যায় ৬, হাদীস নং ২৬০২ ও ২৬০৩) অথবা (মুসলিম শরীফ, অনুবাদ – আ.স.ম. নুরুজ্জামান, বাংলাদেশ ইসলামিক সেন্টার, খন্ড ৪, পৃষ্ঠা ১১১ - ১১২, অধ্যায় ১৪ - কিতাবুস সাওম, হাদীস নং ২৬১২ ও ২৬১৩)]

 

আরাফার দিন হচ্ছে সেটাই যেদিন হাজীগন আরাফার মাঠে থাকেন। তার পরদিন হাজীগন আরাফার মাঠে থাকেন না। অথচ বাংলাদেশে অনেকেই মধ্যপ্রাচ্যের একদিন পরে আরাফার রোযা রেখে থাকেন। তাহলে যেদিন হাজীগন আরাফার মাঠে থাকেন না সেদিন আরাফার দিন কিভাবে হয়? দলিল সহ জানতে চাই।

 

(৬) হারাম জাতিয়তাবাদী বর্ডার বা দেশের সীমারেখা অনুযায়ী চাঁদ দেখে বিভিন্ন দেশের সীমান্ত অনুযায়ী বিভিন্ন দেশে ভিন্ন ভিন্ন দিনে রোযা শুরু বা ভিন্ন ভিন্ন দিনে ঈদ করা বৈধ কিনা? দেশে দেশে এই সীমান্ত তো মানুষের তৈরী, আল্লাহর দেয়া নয়, তাহলে ব্রিটিশের দেয়া বর্ডার অনুযায়ী কেন মুসলিমরা ভিন্ন ভিন্ন বারে রোযা শুরু করবে, আর কেনইবা ভিন্ন ভিন্ন বারে ঈদ করবে?? দলিল সহ জানতে চাই।

 

(৭) চাঁদের উদয় স্থলের ভিন্নতা অনুযায়ী নিশ্চিতভাবে সঠিক স্হায়ী সীমানা নির্ধারন করা যায়না। কারন উদয় স্থল সর্বদা একই রকম থাকেনা। যে কোন বছরে যে কোন মাসের চাঁদ পৃথিবীতে প্রথম উদিত হলে যে এলাকাসমূহ তার আওতাভূক্ত থাকে তার সীমানা প্রতিমাসে একরকম থাকেনা, প্রতি বছরেও একরকম হয়না। তারপরেও যদি চাঁদের উদয় স্থলের ভিন্নতার ভিত্তিতে পৃথিবীর বিভিন্ন এলাকার সীমানা নির্ধারন করে সেই সীমানার এক পাশে রোযা অন্য পাশে ঈদ হয়, তবে সেই সীমান্ত অঞ্চলের মানুষ কি রোযা করবে নাকি ঈদ করবে? দলিল সহ জানতে চাই।

 

(৮) চাঁদ দেখার সংবাদ যদি নিকটবর্তি এলাকায় গ্রহণ করা হয় আর দূরবর্তি এলাকায় গ্রহণ না করা হয় তাহলে অবস্হা হয় এমন, ধরে নেই, “ক” নামক একটি এলাকায় ঈদের চাঁদ দেখা গেল। আরও ধরে নেই, এর নিকটবর্তী এলাকার সর্বশেষ সীমানা “জ”। অর্থাৎ “ক” এলাকার চাঁদ দেখার সংবাদ গ্রহনযোগ্য হবে “জ” পর্যন্ত। তার বাহিরে আর “ক” এলাকার চাঁদ দেখার সংবাদ গ্রহনযোগ্য হবে না। মনে করি, “জ” এর একেবারে সাথের এলাকা “ঝ”। কিন্তু “ঝ” নামক এলাকাকে “ক” নামক এলাকা থেকে দূরবর্তি বিবেচনা করা হয় বলে “ক” এলাকার চাঁদ দেখার সংবাদ এই “ঝ” এলাকায় গ্রহনযোগ্য হচ্ছে না। ঐদিন “ঝ” এলাকায় চাঁদ না দেখা গেলে, “জ” এবং “ঝ” একেবারে পাশাপাশি হওয়া স্বত্তেও “জ” এলাকায় ঈদ হবে আর “ঝ” এলাকায় ৩০শে রমজানের রোযা হবে একই দিনে। অথচ হাদিস অনুযায়ী ঈদের দিন রোযা রাখা হারাম। তাহলে “জ” এবং “ঝ” এলাকার সীমান্তে বা এই দুই এলাকার মাঝামাঝি যারা বাস করে তারা কি ঈদ করবে নাকি রোযা করবে? দলিল সহ জানতে চাই

 

(৯) অনেকেই বলেন নামাজের ওয়াক্ত মধ্যপ্রাচ্যে ও বাংলাদেশে এক নয় তাই পহেলা রমযান, শবে কদর, ঈদ ইত্যাদি মধ্যপ্রাচ্যে ও বাংলাদেশে একই বারে নয়। এখানে লক্ষ্যনীয় বিষয় হলো, নামাজের ওয়াক্ত এবং সাহরি ইফতার হয় সূর্য অনুযায়ী কিন্তু যে কোন আরবী মাস শুরু হয় চাঁদ অনুযায়ী এবং পহেলা রমযান, ঈদও হয় চাঁদ অনুযায়ী। সূর্য ও চাঁদের হিসাব আলাদানামাজের ওয়াক্ত এবং সাহরি ইফতার চাঁদ অনুযায়ী হয় না। আরবী মাসের শুরু, পহেলা রমযান, ঈদ এইগুলোও সূর্য অনুযায়ী হয় না।

 

নামাজের ওয়াক্ত যেমন সারা পৃথিবীতে একই সময়ে বা একই সাথে  হয়না, একই ভাবে সাহরী ইফতারও সারা পৃথিবীতে একই সময়ে হয় না। কিন্তু শুক্রবারের নামাজ সারা পৃথিবীতে শুক্রবারেই হয়। একইভাবে সোমবারের নামাজ সারা পৃথিবীতে সোমবারেই হয়। মঙ্গলবারের নামাজ সারা পৃথিবীতে মঙ্গলবারেই হয়। পৃথিবীর বিভিন্ন জায়গায় সূর্য অনুযায়ী নামাজের ওয়াক্তের সময়ের পার্থক্য বজায় রেখে যদি জুম্মার দিনের পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ সারা পৃথিবীতে একই বারে অর্থাৎ শুক্রবারে পড়া যায়, যদি শনিবার দিনের পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ সারা পৃথিবীতে একই বারে অর্থাৎ শনিবারে পড়া যায়, তাহলে পৃথিবীর বিভিন্ন জায়গায় সূর্য অনুযায়ী সাহরির সময়ের পার্থক্য বজায় রেখে এবং সূর্য অনুযায়ী ইফতারের সময়ের পার্থক্য বজায় রেখে পৃথিবীতে প্রথম রমজানের নতুন চাঁদ উদয়ের গ্রহনযোগ্য সংবাদ অনুযায়ী সারা পৃথিবীতে কেন একই বারে রোযা রাখা যাবেনা? দলিল সহ জানতে চাই।

 

(১০) জুম্মার ওয়াক্ত পৃথিবীর বিভিন্ন জায়গায় যত ঘন্টা যত মিনিট আগে পরেই হোক না কেন, জুম্মা সারা পৃথিবীতে একই বারে অর্থাৎ শুক্রবারে হয়। পৃথিবীর বিভিন্ন জায়গায় সূর্য অনুযায়ী জুম্মার ওয়াক্তের সময়ের পার্থক্য বজায় রেখে যদি সারা পৃথিবীতে জুম্মা একই দিনে বা একই বারে (শুক্রবার) পড়া যায় তাহলে পৃথিবীর সকল স্হানের সূর্য অনুযায়ী ঈদের নামাজের ওয়াক্তের পার্থক্য বজায় রেখে পৃথিবীতে শাওয়ালের প্রথম নতুন চাঁদ উদয়ের গ্রহনযোগ্য সংবাদ অনুযায়ী সারা পৃথিবীতে ঈদের নামাজ কেন একই দিনে বা একই বারে পড়া যাবে না? দলিল সহ জানতে চাই।

 

(১১) যারা নিজ নিজ দেশে বা এলাকায় ভিন্ন ভিন্ন ভাবে চাঁদ দেখে সেই অনুযায়ী পৃথিবীর বিভিন্ন জায়গায় ভিন্ন ভিন্ন বারে সিয়াম / রোজা ও ঈদ পালন করে থাকেন তাদের বক্তব্য হচ্ছে "সারা বিশ্বের সাথে একই সময়ে আমরা ইফতার, সাহরী ও নামাজ আদায় করি না"। এই জন্য তারা সারা বিশ্বের সাথে একই বারে (যেমন শুক্রবার বা অন্য কোনো বার) রোযা শুরু এবং সারা বিশ্বের সাথে একই বারে বা দিনে ঈদ পালন করতে চান না। এখন প্রশ্ন হলো, ঢাকার সাথে চট্টগ্রামে  একই সময়ে নামাজের ওয়াক্ত হয়না। ঢাকার সাথে চট্টগ্রামে একই সময়ে সাহরীর সময় হয়না, একই সময়ে ইফতারের সময়ও হয়না। তাহলে এই দুই জায়গার যে কোন এক জায়গায় চাঁদ দেখা গেলে এবং অন্যত্র না দেখা গেলেও ঢাকা ও চট্টগ্রামে একই বারে (যেমন শনিবার) রোজা শুরু করার দলীল কি? আর কেনইবা এই দুই জায়গার যে কোন এক জায়গায় চাঁদ দেখা গেলে এবং অন্যত্র না দেখা গেলেও ঢাকা ও চট্টগ্রামে একই বারে বা দিনে ঈদ পালন করতে হবে? দলিল সহ জানতে চাই।

 

(১২) সূর্যের সময়ের হিসেবে ঢাকা ও চট্টগ্রাম এর সাহরির সময়ের পার্থক্য, সূর্য অনুযায়ী উভয় শহরের ইফতারির সময়ের পার্থক্য ও সূর্য অনুযায়ী উভয় শহরের নামাজের ওয়াক্তের পার্থক্য বজায় রেখে ঢাকা ও চট্টগ্রামের যে কোন এক জায়গায় চাঁদ দেখা গেলে এবং অন্যত্র না দেখা গেলেও চাঁদ দেখার গ্রহণযোগ্য সংবাদ শোনার কারনে যদি ঢাকা ও চট্টগ্রামে একই বারে (যেমন শনিবার বা অন্য যে কোন বারে) রোজা শুরু করা যায় এবং ঢাকা ও চট্টগ্রামে একই বারে বা দিনে ঈদ পালন করা যায়, তাহলে ইফতার, সাহরী ও নামাজের ওয়াক্তের পার্থক্য বজায় রেখে মধ্যপ্রাচ্যের বা বিশ্বের যে কোন স্হানে চাঁদ দেখার গ্রহণযোগ্য সংবাদ শোনার কারনে কেন ঢাকায় একই বারে রোজা ফরজ হবে না?  আর কেনইবা মধ্যপ্রাচ্যের চাঁদ দেখার গ্রহণযোগ্য সংবাদ শুনে ঢাকায় একই বারে ঈদ পালন করা যাবে না? দলিল সহ জানতে চাই।

 

(১৩) যদি বলা হয়, ঢাকার সাথে মধ্যপ্রাচ্যের দূরত্ব, ঢাকার সাথে চট্টগাম বা পঞ্চগড় বা সিলেট বা সাতক্ষীরার দূরত্বের চেয়ে বেশি, তাহলে প্রশ্ন হলো চাঁদ দেখা এলাকা থেকে দূরত্ব সর্বোচ্চ কতদূর হলে গ্রহণযোগ্য সংবাদের ভিত্তিতে সেই এলাকা পর্যন্ত একই বারে রোজা শুরু করা যাবে, দূরত্ব সর্বোচ্চ কতদূর হলে কুরআন নাযিলের রাত লাইলাতুল কদর একই রাতে হবে এবং দূরত্ব সর্বোচ্চ কতদূর হলে গ্রহণযোগ্য সংবাদের ভিত্তিতে একই বারে ঈদ করা যাবে? দূরত্বটি কুরআন বা রাসূল (সাঃ) এর হাদীস থেকে দলীল সহ জানতে চাই  এই প্রশ্নের উত্তরে যদি কোন একটি দূরত্ব উল্লেখ করা হয় তবে আবারো প্রশ্ন আসে ঐ উল্লেখিত দূরত্বের বাহিরে যদি সেদিন চাঁদ নাও দেখা যায় তবে ঐ দুরত্বের ভিতরে ও বাহিরে কুরআন নাযিলের রাত লাইলাতুল কদর কি ভিন্ন হয়ে যাবে? তাহলে কি ঐ দুরত্বের ভিতরের অঞ্চলের জন্য কুরআন এক রাত্রে এবং বাহিরের অঞ্চলের জন্য কুরআন তার পরের রাতে আবার নাযিল হয়েছিল? দলিল সহ জানতে চাই।

 

(১৪) যদি এভাবে বলা হয়, ঢাকার সাথে মধ্যপ্রাচ্যের ‘সূর্যের সময়ের পার্থক্য’, ঢাকার সাথে চট্টগাম বা পঞ্চগড় বা সিলেট বা সাতক্ষীরার সময়ের পার্থক্যের চেয়ে বেশি, তাহলেও প্রশ্ন এসে যাবে চাঁদ দেখা এলাকা থেকে সময়ের পার্থক্য সর্বোচ্চ কতটুকু হলে সেই এলাকা পর্যন্ত গ্রহণযোগ্য সংবাদের ভিত্তিতে একই দিনে/বারে রোজা শুরু করা যাবে, সময়ের পার্থক্য সর্বোচ্চ কতটুকু হলে কুরআন নাযিলের রাত লাইলাতুল কদর একই রাতে হবে এবং সময়ের পার্থক্য সর্বোচ্চ কতটুকু হলে একই দিনে/বারে ঈদ করা যাবে? ঐ উল্লেখিত সময়ের পার্থক্যের এলাকার বাহিরে যদি সেদিন চাঁদ নাও দেখা যায় তবে ঐ সময়ের পার্থক্যের এলাকার ভিতরে ও তার চেয়ে বেশি সময়ের পার্থক্যের এলাকায় কুরআন নাযিলের রাত লাইলাতুল কদর কি ভিন্ন হয়ে যাবে? তাহলে কি ঐ সময়ের পার্থক্যের এলাকার ভিতরের অঞ্চলের জন্য কুরআন এক রাত্রে এবং তার চেয়ে বেশি সময়ের পার্থক্যের অঞ্চলের জন্য কুরআন তার পরের রাতে আবার নাযিল হয়েছিল? দলিল সহ জানতে চাই।

 

(১৫) সারা পৃথিবীতে একই বারে রোজা শুরু ও সারা পৃথিবীতে একই বারে ঈদ পালণ করতে হবে না, এর দলিল জানতে চাই

 

(১৬) নিজ নিজ দেশের বা এলাকার চাঁদ অনুযায়ী ভিন্ন ভিন্ন বারে / দিনে রোজা এবং ভিন্ন ভিন্ন বারে / দিনে ঈদ পালন করতে হবে এর স্বপক্ষে আল্লাহর কিতাব বা রাসূল (সাঃ) এর হাদিস থেকে অনুগ্রহ পূর্বক দালিল পেশ করবেন। সেই দেশের বা এলাকার সীমানা কতটুকু হবে সেটাও দলীল সহ জানাবেন। সেই সীমানার এক পাশে রোযা অন্য পাশে ঈদ হলে সীমান্ত অঞ্চলের মানুষ কি করবে এবং লাইলাতুল কদর কোন পাশের বার অনুযায়ী হবে তাও দলিল সহ জানাবেন এবং সেই সীমানার একপাশ থেকে রোযা শুরু করে অপর পাশে ঈদ করলে ২৮ বা ৩১ রোযার যে সমস্যা হয় অনুগ্রহ পূর্বক তার দলীল সহ সমাধান দিবেন।

Views: 380 | Added by: Sabuz | Tags: রমজান, চাঁদ, রোজা, Moon sighting, একই দিনে রোযা একইদিনে ঈদ, চাঁদ দেখা প্রশ্ন, ঈদ, প্রশ্ন, ঐক্য, Global Moon Sighting | Rating: 1.0/2
Total comments: 0
avatar
Login form

Search

Calendar
«  July 2014  »
SuMoTuWeThFrSa
  12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
2728293031

Entries archive

Site friends
  • Create a free website
  • uCoz Community
  • uCoz Textbook
  • Video Tutorials
  • Official Templates Store
  • Best Websites Examples